বৃহস্পতিবার , ডিসেম্বর ১৪ ২০১৭ | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
Breaking News
Home / Uncategorized / আমার পরিচয় [ সৃষ্টিতত্ত্ব ] : ধর্ম, দর্শন ও বিজ্ঞান অনুসারে।

আমার পরিচয় [ সৃষ্টিতত্ত্ব ] : ধর্ম, দর্শন ও বিজ্ঞান অনুসারে।

আদম সৃষ্টি
আমার পরিচয় : সৃষ্টিতত্ত্ব
*************************
আল্লাহ্ কঠিন, কোমল, মধুর ও তিক্ত মৃত্তিকা সংগ্রহ করলেন। তিনি এ মৃত্তিকাকে পানি দিয়ে কর্দমে পরিণত করলেন এবং পবিত্র না হওয়া পর্যন্ত ফোঁটায় ফোঁটায় পানির পতন ঘটালেন এবং আঠাল না হওয়া পর্যন্ত আর্দ্রতা দ্বারা পিন্ড প্রস্তুত করলেন। এ পিন্ড থেকে তিনি আদল, জোড়াসমূহ, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ও বিভিন্ন অংশসহ একটা আকৃতি তৈরী করলেন।একটা নির্দিষ্ট সময় ও জ্ঞান স্থায়িত্ব পর্যন্ত তিনি এটাকে শুকিয়ে কাঠিন্য প্রদান করলেন। এরপর এ আকৃতির মধ্যে তিনি তাঁর রূহ ফুতকার করে দিলেন।ফলে এটা প্রাণ-চৈতন্য লাভ করে মানবাকৃতি ধারণা করলো এবং এতে মন সন্নিবেশ করা হলো, যা তাকে নিয়ন্ত্রণ করে।

বুদ্ধিমত্তা দেয়া হলো, যা তার উপকারে আসে; অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দেয়া হলো, যা তার কাজে লাগে; ইন্দ্রিয় দেয়া হলো, যা তার অবস্থায় পরিবর্তন ঘটায় এবং জ্ঞান দেয়া হলো, যা সত্য-অসত্য, স্বাদ-গন্ধ ও বর্ণ-প্রকারের পার্থক্য বুঝাতে শেখালো। আদম হলো বিভিন্ন বর্ণের, আসঞ্জক পদার্থেও, বিভিন্ন পরস্পর বিরোধী উপকরণের এবং বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য যেমন- উষ্ণতা, শীতলতা, কোমলতা, কাঠিণ্য, খুশি-অখুশি ইত্যাদিও সংমিশ্রণের কর্দম।

আল্লাহ্ তখন ফেরেশতাদের প্রতি তাঁর প্রতিশ্রুতি পূরণার্থে এবং তাদের প্রতি তাঁর নির্দেশের আনুগত্য পরিপূরণ করণার্থে আত্মসমর্পণের স্বীকৃতি স্বরূপ ও তার মহিমার প্রতি সম্মান স্বরূপ সেজদাবনত হতে বললেন। তিনি বলেন :

“আদমকে সেজদাহ্ কর এবং ইবলিস ব্যতীত সকলেই সেজদা করলো”
[কুরআনের আয়াত]

ইবলিস আল্লাহ্র আদেশ পালনে বিরত থাকলো। সুতরাং সে আগুনের তৈরী বলে অহংকারবোধ করলো এবং মাটির তৈরি বলে আদমকে অবজ্ঞা করলো। ফলে আল্লাহ্ ইবলিসকে তাঁর রোষের পূর্ণ প্রতিফল প্রদানের এবং মানুষকে পরীক্ষা করার ও শয়তানের প্রতি তাঁর প্রতিশ্রুতি পূর্ণ করার জন্য যথেষ্ট সময় দিলেন।

আল্লাহ্ বলেন :
“তা হলে তুমি অবকাশ প্রাপ্তদের অন্তর্ভূক্ত নির্ধারিত সময়ের দিন পর্যন্ত”
[কুরআনের আয়াত]

এরপর আল্লাহ্, আদমকে একটা ঘরে অধিষ্ঠান করলেন, যেখানে তিনি মহানন্দে ও পূর্ণ নিরাপত্তায় বসবাস করতে লাগলেন। তিনি আদমকে ইবলিস ও তার শত্রুতা সম্পর্কে সাবধান করে দিলেন।

কিন্তু ইবলিস আদমের বেহেশ্ত -বাস ও ফেরেশ্তাদেও সংসর্গের জন্য ঈর্ষাণি¦ত হলো। সুতরাং সে আদমের ‘ইয়াকিন’ শিথিল করলো এবং তার প্রতিশ্রুতি দূর্বল করলো। এতে আদমের আনন্দ ভয়ে পরিণত হলো এবং লজ্জায় পরিণত হলো। তখন আল্লাহ্ আদমকে ‘তওবা’ করার সুযোগ দিলেন এবং তাঁর রহমতের বাক্য শেখালেন। তিনি আদমকে বেহেশতে প্রত্যাবর্তনের ওয়াদা দিলেন এবং তাঁকে কষ্ট ভোগ করা ও বংশ বিস্তারের স্থলে অবতরণ করলেন।

to be continue……

About Shishir

Check Also

মাহে রমজান :

মাহে রমজান : ************** রোজা ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের গুরুত্বপূর্ণ একটি। রমজানের রোজা রাখার শুরুর প্রথম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *